আজ : ১০:৪৯, ডিসেম্বর ৬ , ২০১৯, ২২ অগ্রহায়ণ, ১৪২৬
শিরোনাম :

রাজনীতির স্বার্থেই মোজাফফরের জীবন ও কর্ম অনুসরন জরুরীঃন্যাপের শোকসভায় বক্তারা

বিশ্ববাংলানিউজ২৪

আপডেট:০২:৩৬, অক্টোবর ৩ , ২০১৯
photo


লন্ডন::উপমহাদেশের বাম রাজনীতির অন্যতম পুরোধা, মুক্তিযুদ্ধকালীন মুজিব নগর সরকারের উপদেষ্টা, ন্যাপ সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদের বর্নাঢ্য রাজনৈতিক জীবন ও কর্ম উদযাপন আমাদের প্রয়োজনেই জরুরী।বর্তমান রাজনৈতিক ক্রান্তিকালে রাজনীতি বিমূখ প্রজন্মকে রাজনীতিমূখী করতে হলে অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদের মত নেতাদের তাদের সামনে উপস্থাপন করতে হবে।

২রা অক্টোবর বুধবার,পূর্ব লন্ডনের মাইক্রোবিজনেস কমিউনিটি হলে অধ্যাপক মোজাফফর আহমেদের মৃত্যুতে যুক্তরাজ্য ন্যাপ আয়োজিত এক শোক সভায় বক্তারা উপরোক্ত মন্তব্য করেন।

সংগঠনের যুক্তরাজ্য সভাপতি আব্দুল আজিজ ময়নার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ হাসান আহমদের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ব্রিটেনে মুক্তিযুদ্ধের প্রবীন সংগঠক সুলতান শরীফ। বক্তব্য রাখেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ফারুক, অধ্যাপক মোজাফফরের এক সময়ের রাজনৈতিক অনুসারী মুক্তিযোদ্ধা সাংবাদিক আবু মুসা হাসান, সাংবাদিক সৈয়দ আনাস পাশা, সৈয়দ এনামুল ইসলাম, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের ডেপুটি মেয়র কাউন্সিলার আহবাব হোসেন, যুক্তরাজ্য জাসদের সভাপতি হারুনুর রশীদ, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবুল মনসুর, প্রগ্রেসিভ ফোরামের ড. মুখলেসুর রহমান মুকুল, ন্যাপ নেতা জোবায়ের আহমেদ, বাসদ নেতা গয়াসুর রহমান গয়াস, বিসিএ সভাপতি এম এ মুনিম, কবি মুজিবুল হক মনি, আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল আহাদ চৌধুরী,আ স ম মিছবাহ,আলিমুজ্জামান, ও যুক্তরাজ্য একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সাধারণ সম্পাদক জামাল খান প্রমূখ।

পবীত্র কোরআন তেলাওয়াত ও প্রয়াত নেতার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালনের মাধ্যমে শুরু হওয়া শোকসভায় বক্তারা বলেন, ‘অধ্যাপক মোজাফফর ছিলেন রাজনীতির অহংকার প্রজন্মের শেষ প্রতিনিধি। সুবিধা বঞ্চিত জনগোষ্ঠির ভাগ্যন্নোয়নের লক্ষ্যে আজীবন লড়াই করেছেন তিনি।

মোজাফফর আহমেদ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে জনমত সংগ্রহে বিশ্বব্যাপী ছুটে বেরিয়েছেন, এমন মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানের মিত্র মার্কিন সাম্রাজ্যবাদের ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করতে ভারতের সাথে তৎকালীন সোভিয়েট ইউনিয়নের মৈত্রী গড়তেও মূল ভূমিকা রেখেছেন অধ্যাপক মোজাফফর।

শোষনহীন সমাজের স্বপ্নদ্রষ্টা এই কালজয়ী রাজনীতিক ছিলেন তীব্র রসবোধ সম্পন্ন এমন মন্তব্য করে বক্তারা বলেন, রাজনীতিক সভা সমাবেশে যখন কথা বলতেন, তখন তাঁর প্রতিটি রসাত্মক কথাই প্রচন্ডভাবে আঘাত করতো সমাজের অসঙ্গতিগুলোকে। নিজের স্বগোত্রিয়দের কটাক্ষ করে তিনি বলতেন, ‘কে বলেছে আমরা রাজনীতিকরা ত্যাগ করতে জানিনা? অন্তত আর কিছু না হোক দল ও মল ত্যাগতো আমরা অহরহই করছি’। তাঁর কন্ঠে সব সময় উচ্চারিত হতে মানুষের কথা, বক্তৃতায় তিনি চিহ্নিত করে দেখিয়ে দিতেন সমাজের সব অসংগতি।

বক্তারা বলেন, আমাদের রাজনৈতিক ইতিহাসে অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ ছিলেন এক কিংবদন্তীতূল্য নাম। ‘অধ্যাপক মোজাফফর, মার্কা তাঁর কুঁড়েঘর’। ‘কুড়েঘরের মোজাফফর’ নামে সারা দেশে ছিলো তাঁর ব্যাতিক্রমী এক পরিচিতি। শোষনহীন একটি সমাজ প্রতিষ্ঠার প্রত্যয়ে তিনি লড়ে গেছেন আজীবন। বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের প্রতিটি বাঁকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের পরও কোনদিন তিনি এর বিনিময় কিছু গ্রহন করেননি। কয়েক বছর আগে মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদানের জন্য বাংলাদেশ সরকার তাঁকে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রিয় পুরস্কার ‘স্বাধীনতা পদক’-এ ভূষিত করলেও সবিনয়ে তিনি তা প্রত্যাখ্যান করেন। বলেন, ‘কোন কিছু পাবার লক্ষ্যে আমি রাজনীতি করিনি, দেশ ও মানুষের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই রাজনীতি করেছি’।



সাম্প্রতিক খবর

উছমান পুর ইউনিয়ন জনকল্যাণ ট্রাস্ট ইউকের দ্বি – বার্ষিক সাধারণ সভা ও কমিটি গঠন

photo লন্ডনঃউছমান পুর ইউনিয়ন জনকল্যাণ ট্রাস্ট ইউকের দ্বি – বার্ষিক সাধারণ সভা ও কমিটি গঠন অনুষ্ঠিত হয়।২ ডিসেম্বর সোমবার পূর্ব লন্ডনের স্থানীয় এক হলে।সংগঠনের সভাপতি জনাব আব্দুল কাদির রুনুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হামিদ রুহিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় পবিত্র কোরআন থেকে তিলাওয়াত অন্যতম ট্রাস্টি মাওলানা মাঈদুল হক। সভাপতির স্বাগত বক্তব্যের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment