আজ : ০৮:৪৬, সেপ্টেম্বর ২৬ , ২০২০, ১১ আশ্বিন, ১৪২৭
শিরোনাম :

মৌলভীবাজারে মেডিকেল কলেজ ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি

বিশ্ববাংলানিউজ২৪

আপডেট:১০:৫৫, সেপ্টেম্বর ১৫ , ২০২০
photo


লন্ডনঃমৌলভীবাজার একটি অগ্রসর ও অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ এলাকা। এই জেলায় প্রতি বছর চা,আগর,খনিজ সম্পদ ও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিটেন্স সরকারের বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আদায়ে আবদান রাখছে।

রয়েছে পর্যটন শিল্প। কিন্তু শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে মৌলভীবাজার জেলা। প্রতিবছর প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষার্থী উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিতে বিড়ম্বনায় পড়ে। অনেকেই জেলার বাইরে যেতে না পারায় উচ্চ শিক্ষা থেকে
বঞ্চিত থাকে। এতে ঝরে পড়ার হার বেড়ে যাচ্ছে।

অন্যদিকে ৭টি উপজেলায় প্রায় ২৫ লক্ষ মানুষের জন্য নেই কোনো মেডিকেল কলেজ। যে কারণে অধিকাংশ ক্ষেত্রে রোগীদের সিলেট পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এতে রোগীরা ভোগান্তিতে পড়েন। মুমুর্ষ রোগীরা পথিমধ্যে মারা যান।

অপরদিকে শান্ত প্রকৃতির জেলা মৌলভীবাজারে লেখাপড়ার জন্য রয়েছে উপযুক্ত পরিবেশ। সিলেট বিভাগের ৪টি জেলার মধ্যে ইতিমধ্যে ৩টি জেলাতেই মেডিকেল কলেজসহ বিভিন্ন ধরণের বিশ্ববিদ্যালয় আছে।

সম্প্রতি সুনামগঞ্জে ১টি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং হবিগঞ্জে ১টি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় স্তাপনের বিল সংসদে অনুমোদিত হলো। অথচ চা শিল্পের রাজধানী বলে খ্যাত বৃহত্তর সিলেটের আওতাধীন মৌলভীবাজার জেলায় নেই কোন মেডিকেল কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়।

এ জেলার অনেক শিক্ষার্থী মেডিকেলে পড়তে বিদেশে পাড়ি জমায়। এ অবস্থায় সরকারের শিক্ষা ও স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা ব্যাহত হচ্ছে।

সম্প্রতি সরকার বিভিন্ন জেলায় মেডিকেল কলেজ স্থাপনের ঘোষণা দেয়ার পর সিলেট বিভাগের ৪ জেলার মধ্যে মৌলভীবাজার জেলাটি এর আওতায় আসেনি।

এ বিষয়টি দেশে বিদেশে অবস্থানরত মৌলভীবাজারের সকল মানুষকে মর্মাহত করেছে। জেলার মানুষের দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি বাস্তবায়নের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও স্বাস্থ্য মন্ত্রী মহোদয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।


অনুরোধক্রমে:
আব্দুল মতিন, সভাপতি -মৌলভীবাজার জেলা জনকল্যাণ সংস্থা ইউকে! প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি- যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগ ক্যামডেন শাখা। সাবেক সহ-সভাপতি যুক্তরাজ্য যুবলীগ ওয়েস্ট লন্ডন শাখা।

Posted in মতামত


সাম্প্রতিক খবর

জৈন্তাপুরে মসজিদের শিক্ষক গরম চা ঢেলে শিশু ছাত্রকে নির্যাতন

photo জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধিঃ সিলেট জৈন্তাপুর উপজেলার ফতেহপুর (হরিপুর) ইউপির হেমু মাঝপাড়া গ্রামের মক্তবের শিক্ষক গরম চা ঢেলে ৭ বৎসরের শিশুর শরীর জ্বলসে দিয়েছে। প্রতিকার চাইলে কোন কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহন করেনি মহল্লাবাসী। সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত) আইনের সহায়তা নিতে পরামর্শ দেন। মামলা দায়ের‘র প্রস্তুতি চলছে। পরিবার সূত্রে জানা যায়, ২২ সেপ্টেম্বের মঙ্গলবার

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment