আজ : ১১:৪৯, ফেব্রুয়ারি ২৯ , ২০২০, ১৭ ফাল্গুন, ১৪২৬
শিরোনাম :

জৈন্তার লাল শাপলা’র বিলকে রং-তুলির মাধ্যমে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরবেন জার্মান ও বাংলাদশের চিত্রশিল্পীরা

বিশ্ববাংলানিউজ২৪

আপডেট:০৯:৩৩, জানুয়ারি ১২ , ২০২০
photo


মোঃ হানিফ, জৈন্তাপুর (সিলেট) প্রতিনিধিঃসিলেট জৈন্তাপুর উপজেলার লাল শাপলা রাজ্যের আলো ছড়িয়ে পড়ছে বাংলাদশ সহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে। ২০১৫ সনে দেশের কয়েকটি জাতীয় দৈনিক, সিলেট থেকে প্রকাশিত দৈনিক পত্রিকা এবং বিভিন্ন বেসরকারী টেলিভিশন ধারাবাহিক প্রামাণ্য অনুষ্ঠান সম্প্রচার করে। ডিবির হাওর এলাকার ৪টি বিল বাংলাদেশের পর্যটকদের কাছে আকর্ষনিয় হয়ে উঠে । তারই ধারাবাহিকতায় বিভিন্ন ফটোগ্রাফি সোসাইটির এক্সিভিশনের মাধ্যমে সিলেটের জৈন্তাপুরের লাল শাপলার বিলটির চিত্র তুল ধরা হচ্ছে।
ইমরান আহমদ সরকারি মহিলা কলেজের সহকারী অধ্যাপক ফটোগ্রাফার মোঃ খায়রুল ইসলাম বাংলাদশ ও ভারতের বিভিন্ন এক্সিভিশনে শাপলা বিলের অনেক ছবি প্রর্দশন করা হয়েছে।
অপর দিকে কয়েক বারের প্রথমস্থান অর্জনকারী জাতীয় দৈনিক প্রথম আলোর সিলেটের চিত্রশিল্পী আনিস মাহমুদের অসাধারণ লাল শাপলার ছবি পত্রিকাটির মলাট হিসাবে প্রকাশিত হয়। যার ফল জৈন্তিয়ার লাল শাপলার রাজ্যকে পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে বাংলাদেশের মানচিত্রে স্থান করে নেয়।
সম্প্রতি সময়ে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের পর্যটকরা লাল শাপলার রাজ্যে এসে লাল শাপলার সাথে মনকে বিলিয়ে দিচ্ছেন এবং একনজর দেখার জন্য লাল শাপলার বিল গুলো পরিদর্শন করে যান।
১০ জানুয়ারী শুক্রবার সকাল হতে বিকাল পর্যন্ত লাল শাপলার বিলে জলরং এর মাধ্যমে বিশ্ববাসীর নিকট রং-তুলির মাধ্যমে লাল শাপলার রাজ্যের চিত্রকর্ম তৈরী করেন জার্মান চিত্রশিল্পী ক্লাউডিয়া, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আর্টিকালচার বিভাগের লেকচারার জুনায়েদ মোস্তফা, রাশেদ কামাল রাশেদ নিজ নিজ রং-তুলির মাধ্যমে জৈন্তাপুরের লাল শাপলার রাজ্যের বিভিন্ন চিত্রকর্ম ধারন করেন।
জুনায়েদ মোস্তফা প্রতিবেদককে বলেন, জৈন্তাপুর উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে লাল শাপলা বিলের সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরা হয়েছে। এখানে কিছু ভুল তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে, যার ফলে ঐহিত্যবাহী এবং পুরাকৃর্তী সহ বিভিন্ন দেশ হতে আগত পর্যটকরা এ অঞ্চলের ভুল ইতিহাস জানবে। লাল শাপলার রাজ্যর সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার আহবান জানান।
রাশেদ কামাল রাশেদ বলেন, আপনাদের মাধ্যম সরকারের উর্দ্বতন কর্তপক্ষের কাছে দাবী জানাই এই বিল গুলোর বিভিন্ন অংশ অবৈধ ভাবে দোকান, লাল শাপলা ধংস করে বিলের জমি দখল করে ফসলী জমি তৈরী করা হচ্ছে। দ্রুত অবৈধ দখলদারের হাত হতে বিল গুলোকে রক্ষা করতে প্রশাসনের এখনই প্রদক্ষেপ গ্রহন করা প্রয়োজন, অন্যথায় লাল শাপলার বিল গুলো অচিরেই তার সোন্দর্য্য বিলিন হয়ে যাবে। তিনি আরোও বলেন অচিরেই আমরা ছাত্র-ছাত্রীদেরকে নিয়ে লাল শাপলার বিলে চিত্রকর্মের উপর প্রশিক্ষনের নিয়ে আসব। জার্মান'র চিত্রশিল্পী ক্লাউডিয়া প্রতিবেদককে জানান, বাংলাদেশের দর্শনীয় স্থানের মধ্যে অন্যমত আকর্ষনীয় এটি। লাল শাপলা, অতিথি পাখি, সূর্য উদয়-সূর্যাস্ত বিষয়টি অকল্পনীয় লাগছে। অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশের সিলেটের লাল শাপলার পর্যটন স্পটটি অন্যতম। স্থানটি দেখে বিভিন্ন ভাবে ১০টি চিত্রকর্ম তৈরী করেছি, যাহা বিশ্বের বিভিন্ন আর্ন্তজাতিক এক্সিভিশনে তুলে ধরবেন বলে জানান। তিনি আরোও বলেন বিলে যাতায়াতের রাস্তাটি সংস্কার করলে বিলটি আরও আর্কর্ষনীয় হতো।
জৈন্তাপুর পুরাকৃতি ও পর্যটন উনয়ন সংরক্ষণ কমিটির সাধারণ সম্পাদক ইমরান আহমদ সরকারি মহিলা কলজের সহকারী অধ্যাপক মোঃ খায়রুল ইসলাম প্রতিবেদককে জানান, আমরা ইতোপূর্বে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসক বরাবর আবেদন করি বিলের লীজ বাতিল, পুরাকৃতি সংরক্ষণ এবং লাল শাপলা বিলের প্রকৃত এরিয়া নির্ধারণ করে বিলটি সংরক্ষণ করার। বিলের লীজ বাতিল করা হলেও অজ্ঞাত কারনে বিলের এরিয়া নির্ধারণ করা হয়নি। ফলে প্রভাবশালী ভূমি খেকু চক্রের সদস্যরা বিলের প্রায় ২ শত বিঘা জমি দখল করে বাড়ী নির্মাণ ও লাল শাপলা নষ্ট করে ফসলী জমিতে রুপান্তর করেছে। বিলটির প্রকৃত এরিয়া নির্ধারণ ও সংরক্ষনের জন্য আমি উর্দ্বতন কর্তপক্ষের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি।

Posted in সিলেট


সাম্প্রতিক খবর

খুজগীপুর এম ইউ হাইস্কুল এক্স ষ্টুডেন্ট ফোরামের আয়োজনে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রধান

photo লন্ডনঃওসমানী নগর থানার উমরপুর ইউনিয়নের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যালয় খুজগীপুর এম ইউ হাইস্কুল এক্স ষ্টুডেন্ট ফোরামের আয়োজনে প্রবাসে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রধান ২৪শে ফেব্রুয়ারি সোমবার বিকেলে পূর্ব লন্ডনের মাইক্রোবিজনেস সেন্টারে মাতৃভাষা আন্দোলনের সকল শহীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করে রুহিন আহমেদের তেলাওতের মাধ্যমে অনুষ্টিত

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment