আজ : ০৫:১৪, জুন ৪ , ২০২০, ২১ জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭
শিরোনাম :

আমি শেখ মুজিবুর রহমানঃবাবুল রহমান

বিশ্ববাংলানিউজ২৪

আপডেট:১২:০২, এপ্রিল ৭ , ২০২০
photo

আমি শেখ মুজিবুর রাহমান বলছি তোরা আর আমাকে কষ্ট দিসনা,আমার আত্বা কষ্ট পাচ্ছে,যে মাটিতে ঘুমিয়ে আছি শত সহস্র শহীদের তাজা রক্তের গন্ধে আমি বিচলিত,জীবন আত্বাহুতি দিয়েও শান্তি পেলাম না।

তোরা কি চাস?
আমিতো দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে বলেছিলাম আমার দলে অনেক নব্য ধনাট্য আছে ওদের লুটপাটের সুযোগ বহুগুন বেড়ে গেছে এখনি প্রতিরোধ না করলে লুটপাটে লিপ্ত হয়ে দেশকে ধঃস্বের দিকে নিয়ে যাবে যদি না আমি বাকশাল প্রতিষ্ঠা করি।বাকশাল প্রতিষ্ঠা করে সমাজতান্ত্রিক ব্যবস্হায় না এনে যদি আমার মৃত্যু ঘটে তবে ওরা দলকে কব্জা করে লুটপাটে উন্মত্ত হয়ে উঠবে।এমনকি স্বাধীন বাংলাদেশের মূলমন্ত্রে শত্রুপক্ষের নীতি ও চরিত্র অনুসরন করে আওয়ামী লীগের চরিত্র পাল্টাতে শুরু করবে আর তাই যদি হয় তবে সেটা হবে আমার দ্বিতীয় মৃত্যু।

তাই আগেই বলছি আমার দল আমার অনুসারিদের হাতেই যদি দ্বিতীয় মৃত্যু ঘটে তবে দীর্ঘকাল বিস্মৃতির অন্ধকারে চলে যেতে হবে কখন ফিরতে পারবো জানিনা।

খন্দকার মুশতাকের ভালোবাসায় আমি মুগ্ধ ছিলেম কিন্তু আমি ও আমার দলের সর্বনাশের পথেই সে হাঁটছিলো টের পাইনি,আজ আমার রক্তের বাঁধন আমার কন্যা শেখ হাসিনা কতটুকু টের পাচ্ছে জানিনা।

মা’রে তুই সাবধান হয়ে যা,কিছু মানুষের ডিএনএ টেষ্ট জরুরী।দেশকে নৈরাজ্যের দিকে ঠেলে দিতে কিছু মানুষের কুটকৌশল আছে সেদিকে খেয়াল রাখিস।মোশতাকের রক্তের গ্রুপের সাথে অনেকেরই মিল আছে বা থাকতে পারে সেটাও নিশ্চিত।ব্যাংক ডাকাতি শেয়ার মার্কেট লোটপাট হলমার্ক কেলেঙ্কারিদের রক্তের রং লাল কিন্তু পরীক্ষা করলে দেখতে পাবে ওদের শিরায় শিরায় ঐসব মির্জাফরদের রক্ত বা মন মানষিকতার মিল আছে।ওরা দেশকে ধঃস্বের দিকে নিয়ে আমার গৌরবোজ্জল অতীতকে নষ্ট করে সোনার বাংলাকে শ্বশানে পরিনত করতে চাচ্ছে।আমার দেশের যুবকদের অনৈতিক কাজে মগ্ন রেখে চুষেপুষে খেয়ে তাদের আখের গোঁজাতে চাচ্ছে।বিচার বিভাগ প্রশাসনিক দপ্তরকে কালো টাকায় ঢাকিয়ে কবর রচনা করতে মরিয়া উঠেছে,আমার মেহনতি মানুষের অন্ন কেড়ে নিয়ে দেশে বিদেশে বিশাল অট্টলিকার মালিক হচ্ছে।ওরা হারামী,ওরা রক্তচোষা নরপিচাশ,ওদের রক্তচক্ষুকে ভয় পেলে এদেশ অন্ধকারে নিমজ্জিত হবে।আমার এ আত্বা মরেও শান্তি পাবেনা,কি হবে আমার জন্মবার্ষিকী পালন করে যদি না আমার মানুষ দুমোটো ভাত পায়,শান্তিতে ঘুমোতে পারে,বিচারহীনতার বেড়াজাল ডিঙ্গাতে পারে।

হে আমার বীর বাঙ্গালী,হে আমার সৈনিক তোরা আবার একত্রিত হো,ওদের কালো হাতের থাবা থেকে দেশকে বাঁচা,যেভাবে সাতই মার্চ রেশকোর্স ময়দানে জড়ো হয়েছিলে আমার ডাকে তোদের জীবন বাজি রেখে।আমার বিশ্বাস আমার কন্যা তোদেরকে কাঙ্খিত স্হানে নিয়ে যেতে পারবে।তোরা আবার জাগ্রত হয়ে ওর হাতকে শক্তিশালী কর,স্বাধীনতার সুফল পেতে শুরু কর।

চৌমুহনীয় পেরিয়ে মিনিমাম সত্তর মাইল গতিতে মহাসড়কে চলছে উন্নয়নের যাত্রা,মধ্যম আয়ের দেশ থেকে প্রথম সারির আয়ের দেশ হবে,সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়া ছেড়ে ইউরোপের সাথে তালমিলিয়ে কাঁধে কাঁধ রেখে চলবে বাংলাদেশ তাও মানলাম,দ্বিমত পোষণ করলাম না।দৃশ্যত অনেক উন্নয়ন সেদিকে বাড়াবাড়ি করলাম না কিন্তু বিচার ও প্রশাসনের দিকে কতটা এগুলাম...!

বিচারের বাণী কি আজো নিরবে নিভৃতে কাঁদে?নিপীড়িত নিষ্পেষিত বাঙ্গালী যেকারনে ভাষা আন্দোলন ও যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছিলো তাদের ন্যায্য হিস্যা কি বুঝে নিচ্ছে?নাকি বিচার বিভাগ আজো মাকড়সার জালের মত বন্দি অগণিত মানুষের জন্য...!

স্বাধীন দেশের স্বাধীন বিচারকের দৃষ্টিতেই জামিন অথবা রায় হবে সেখানে অপরাধী বেঁচে যাক তবে কোন নিরপরাধীর যেন সাজা না হয়। আজ দেশের স্বাস্হসেবা এতোই নিম্ন পর্যায়ে গেছে বিত্তশালীরা বাহিরে যায় সেবা নিতে,এটাই কি স্বাধীনতা?মহামারীতে ডাক্তার নামের কিছু কলংকরা প্রাইভেট চেম্বার বন্ধ রাখে,হাসপাতালে সেবা দিতে চায় না তাহলে কেন এতো প্রাইভেট ক্লিনিক,কেনইবা ডাক্তারের লাইসেন্স বাতিল হচ্ছেনা।এসব অদক্ষ স্বাস্হ মন্ত্রী দিয়ে সোনার বাংলা হবেনা,ওরা শ্মশানে পরিণত করে বিদেশে পালিয়ে যাবে।কি আজব দেশ কি আজব উন্নয়নের লীলাখেলা,আসামী শনাক্ত এবং দোষীসাব্যস্ত,বিচারকের ষ্ট্যান্ডরিলিজ অতপর জামিন ও ফুলেরমালা।এভাবে দেশ চালালে আমার কষ্ট হয়,ওরা মুজিব সৈনিক বলে মুখে ফেনা তুললেও কিন্তু লুটেরা বদমাশ।

আজ দেশে দূর্ভিক্ষ হওয়ার উপক্রম,মহামারীতে খাদ্য সংকটে পড়বে,ভুল তথ্যের উপর নির্ভর না করে তদারকি করা শ্রেয়।

মা’রে আলামত হিসেবে অনেক কিছু চলে আসছে ধরাযাক সরকার কর্তৃক সকল কলকারখানা বন্ধ ঘোষণা কিন্তু কার হুকুমে লাখো শ্রমিকের ঢল রাস্তায়,বিজিইএমের এতো শক্তি কোত্থেকে আসলো.!

হ্যাঁ শক্তি আসবে কেননা রসায়ণের খেসারত এভাবেই হয়,বিজিএমইএ নিয়মবহির্ভূত স্হাপনা সরকার ভাঙ্গতে না পারা একটা চরম ভুল,আজ সরকারের পাশাপাশি সংগঠনের সভানেত্রী হুকুম দেয়।এগুলো অশনি সংকেত,শক্তহাতে হাল না ধরলে উন্নয়নের গতিধারার পরিবর্তন ঘটে দেশ নৈরাজ্যর স্বর্গপুরী হয়ে যাবে।সবনেতার চরিত্রই ভালো,সবই গদির আশপাশে থাকতে চায়,এতো ভালো যারজন্য ৭৫ অগাষ্টে তোদেরকে কঠিন শোক সইতে হলো।আরেকটি অগাষ্ট কেড়ে নিলো ছব্বিশটা তাজা প্রাণ,সেবার প্রাণে বেঁচে গেলি।

অনেক ত্যাগি নেতা যারা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম করে দলকে ক্ষমতায় এনেছিলো আজ তারা কই?সুযোগ সন্ধানীর ভীড়ে অনেক ত্যাগী নেতা হারিয়ে গেছেন যেন এই ত্যাগের কোন মূল্য নেই,আপনি খুঁজে বের করুন সেসব নেতাদের দলের স্বার্থোন্মত্ত করার জন্য।

জয় হোক আপনার,জয় হোক সারা বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা মুজিবপ্রেমি মানুষের।

লেখকঃবাবুল রহমান
কলামিষ্ট,লন্ডন ।



সাম্প্রতিক খবর

নিলা তুমি যেওনাঃবাবুল রহমান

photo ভালোবাসা ও পছন্দের মানুষগুলো শ্বাসরোধ করেই থেমে থাকেনা,আমেরিকার জর্জ ফ্লোয়েডের মত মৃত্যু নিশ্চিত করেই যেতে চায়।অনুভূতির জায়গাটি নিয়ে খেলতে আগ্রহী,ভেবে দেখেনা মানুষটি কত কষ্ট পাবে।পাথরের তৈরী মন হলে সেখানে আঘাতে কিছু হবেনা কিন্তু হৃদয়টা যে এমন অল্পতেই নষ্ট হয়,কষ্ট লাগে বড্ড। নিলার সাথে পরিচয় জর্ডানের ট্রান্জিট লাউন্জে,সেইথেকে টুকটাক মেসেজ দেয়া নেয়া এবং অন্তরঙ্গ।বেশদিন

বিস্তারিত

0 Comments

Add new comment